ইতালির ঐক্য আন্দোলনে ম্যাৎসিনির ভূমিকা

- September 11, 2019
১৮৩১ খ্রিস্টাব্দের পর ইতালির ঐক্য আন্দোলনের অন্যতম প্রধান নেতা ছিলেন জোসেফ ম্যাৎসিনি। তিনি ১৮০৫ খ্রিস্টাব্দে ২২ জুন ইতালির জেনােয়া নামক স্থানে একজন চিকিৎসকের ঘরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি নিজে আইনজীবী ছিলেন। যৌবনকালে সাহিত্যিক, কবি ও দার্শনিকদের রচনা তার মনে গভীর প্রভাব বিস্তার করে। তিনি ছিলেন স্বভাব সাহিত্যিক। ইয়ং ইতালীয় পত্রিকায় তার প্রকাশিত রচনাবলী ইতালির যুব শক্তিকে অনুপ্রাণিত করে। কিন্তু ইতালির রাজনৈতিক দুর্দশা তার মনে গভীরভাবে রেখাপাত করে। তিনি ধীরে ধীরে ইতালির রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়েন। শেষ পর্যন্ত তার একমাত্র আকাক্ষা হল ইতালিকে বিদেশি শাসন থেকে মুক্ত করে তাকে ঐক্যবদ্ধ করা। ছাত্রাবস্থাতেই জোসেফ ম্যাৎসিনি দেশের ঐক্য ও স্বাধীনতার জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেন।
PHILOSOPH GIUSEPPE MAZZINI
জোসেফ ম্যাৎসিনি প্রথম জীবনে কার্বোনারি (Carbonari) নামক একটি গুপ্ত বিপ্লবী দলে যােগদান করেন এবং তাতে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। সন্ত্রাসী কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত অভিযোগে ১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে তিনি ৬ মাস কারারুদ্ধ হন। ১৮৩১ খ্রিস্টাব্দে কারামুক্ত হয়ে নতুন পথে দেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় ঐক্য আন্দোলন শুরু করেন। কিন্তু সরকার তাকে দেশ থেকে বহিস্কার করে দিলে তিনি সুইজারল্যান্ড, ফ্রান্স ও ইংল্যান্ড থেকে আন্দোলন পরিচালনা করে। তিনি উপলদ্ধি করেন যে, গুপ্ত সমিতির দ্বারা দেশের স্বাধীনতা আনা সম্ভব নয়। ইতালির মুক্তির জন্য এমন দল স্থাপন করতে হবে যা প্রকৃত জনজীবনের সঙ্গে সরাসরি সংযােগ থাকবে। ম্যাৎসিনি প্রজাতন্ত্রবাদীই ছিলেন না, তার মধ্য সমাজতান্ত্রিক চিন্তাধারা লক্ষ্য করা যায়। তিনি জ্যাকোবিন সমাজতন্ত্রবাদের অনুসারী ছিলেন। তিনি সম্পত্তির অধিকার লোপ না করে সম্পত্তির ওপর রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণের কথা বলেন।

ইয়ং ইতালি দল গঠন (Young Italy): ম্যাৎসিনি ১৮৩১ খ্রিস্টাব্দে জুলাই মাসে ইয়ং ইতালি বা তরুণ ইতালি (Young Italy) নামে এক নতুন সংগঠন স্থাপন করেন। যুবশক্তিকে রাজনীতিতে সচেতন করাই ছিল এই সংগঠনের মূলনীতি। ইয়ং ইতালি দলের প্রধান লক্ষ্য ছিল ইতালির জাতীয় ঐক্যে প্রধান অন্তরায় অস্ট্রিয়াকে দেশ থেকে বিতাড়িত করা। এর জন্য বিদেশি সাহায্যের মুখাপেক্ষী না হয়ে নিজের চেষ্টায় ইতালিবাসীকে তা সাধন করতে হবে। দ্বিতীয় লক্ষ্য ছিল ইতালিতে গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র স্থাপন করা। তিনি রাজতন্ত্রে আস্থাশীল ছিলেন না। তিনি মনে করতেন, যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার ওপর প্রতিষ্ঠিত এবং গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র ইতালিবাসীর দুঃখদুর্দশা মােচন করতে সমর্থ হবে। তাঁর নীতি ছিল ইতালিকে তার নিজের স্বাধীনতা অর্জন করতে হবে। এই কর্মধারাকে প্রকৃত Risorgimento বলা যায়। ঈশ্বর, মানুষ ও ইতালির স্বাধীনতা এই ছিল ইয়ং ইতালির মর্মবাণী। ম্যাৎসিনি স্থাপিত তরুণ ইতালি সমগ্র ইতালিতে এক নতুন জীবনের স্পন্দন সৃষ্টি করে। বহু সংখ্যক যুবক দেশের জন্য আত্মত্যাগ ও সর্বপ্রকার দুঃখকষ্ট বরণ করতে প্রস্তুত হয়। দুই বৎসরের মধ্যেই ইতালির ৫০ হাজার যুবক ইয়ং ইতালি (Giovine Italia) সংগঠনের সদস্য হয়।

ইয়ং ইতালি ব্যাপক প্রচারের মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ ইতালীর আদর্শ ছড়িয়ে দেয়। তিনি শ্বেত, রক্ত ও সবুজ রং-এ সজ্জিত ইতালীর জাতীয় পতাকার প্রবর্তন করেন। এই পতাকার এক পিঠে “গণতন্ত্র, সাম্য ও মানবতা" এবং অপর পিঠে “স্বাধীনতা ও ঐক্য” কথাগুলি লিখিত ছিল। ইয়ং ইতালী দলের মুখপত্রের নাম ছিল ইয়ং ইতালী। এই দলে ৪০ বছরের কম বয়সি সদ্যসরা যোগ দিতে পারতো। ১৮৩৩ খ্রিস্টাব্দে পিড মন্টের সেনাদলকে বিদ্রোহে প্ররোচনা দানের অপরাধে মৃত্যুদণ্ড দণ্ডিত হলে, তিনি কিছুকাল সুইজারল্যান্ডের জেনিভা, কিছুকাল ফ্রান্সের প্যারিসে এবং শেষ পর্যন্ত লন্ডনে আশ্রয় নেন। তিনি ইয়ং ইতালী পত্রিকার মাধ্যমে তার ভাবধারা ইতালিতে পৌঁছে দেন।

ম্যাৎসিনির নেতৃত্বে রোমে গণঅভ্যুত্থান: ম্যাৎসিনি ১৮৪৮ খ্রিস্টাব্দে মিলানে আসেন। কিন্তু মিলানবাসী ম্যাৎসিনিকে সমর্থন না করায় তিনি মিলান ত্যাগ করেন। চার্লস এলবার্ট-এর পতন হলে, ম্যাৎসিনি ঘোষণা করেন, রাজাদের যুদ্ধ শেষ হয়েছে, এবার প্রজাদের যুদ্ধ শুরু হবে। গ্যারিবল্ডি তার দেশপ্রেমিক সেচ্ছাসেবী বাহিনী নিয়ে ম্যাৎসিনির পক্ষে যোগ দেন। রােমের জনসাধারণ বিভেদকামী পােপের মুক্তিযুদ্ধে যােগদানে বিরত থাকায় বিরক্ত হয়ে তাকে রােম থেকে বিতাড়িত করে। রােমের জনসাধারণ একটি প্রজাতন্ত্র বা রােমান প্রজাতন্ত্র ঘােষণা করে। এই প্রজাতন্ত্রের তিন শাসকের নাম ছিলেন ম্যাৎসিনি। তিনি এই পদে যােগ দিয়ে অন্ততঃ কিছুদিনের জন্যে তার আদর্শকে রূপায়িত করার চেষ্টা করেন। প্রশাসক ও সংস্কারক হিসেবে এই সময় তিনি তার উজ্জ্বল কৃতিত্বের সাক্ষর রাখেন। তিনি ভূমিসংস্কার, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ, নিম্নতম মজুর হার প্রবর্তন, নাগরিকদের সমান মর্যাদা ও অধিকার প্রবর্তন প্রভৃতি সংস্কার দ্বারা এবং গণভোট প্রবর্তন দ্বারা তার আদর্শের রূপায়ণে চেষ্টা করেন। ম্যাৎসিনির রােমান প্রজাতন্ত্রের ভিত্তি কেবলমাত্র রাজনৈতিক গণতন্ত্রের ওপর স্থাপিত ছিল না, এটি ছিল জ্যাকোবিন সমাজতন্ত্রের দ্বারা অনুপ্রাণিত (Edgar Halt - Risorgimento)। স্পেনের সেনাদল রােমান প্রজাতন্ত্রকে একদিক থেকে আক্রমণ করে। অন্যদিক থেকে ফরাসী রাষ্ট্রপতি তৃতীয় নেপােলিয়নের সেনাদল রােম আক্রমণ করে। গ্যারিবল্ডী রােমান প্রজাতন্ত্র রক্ষার জন্যে প্রাণপণ বাধা দিয়ে পরাস্ত হন। ম্যাৎসিনি শেষ পর্যন্ত হতাশ হয়ে ইংলন্ডে আশ্রয় নেন। ইয়ং ইতালী আন্দোলনের এই নিবেদিত প্রাণ নেতা বাকি জীবন লন্ডনেই কাটান। ১৮৭২ খ্রিস্টাব্দে ১০ মার্চ তিনি মারা যান।

ক্যাভুরের সঙ্গে ম্যাৎসিনির পার্থক্য (Mazzini differences with Cavour): ম্যাৎসিনির প্রজাতান্ত্রিক আদর্শকে ক্যাভুর পরিত্যাগ করেন। ইতালীয় বিপ্লবীদের স্বপ্নের ইতালী কার গঠন করেননি। গণভােট ও প্রজাতম্বের আদর্শ ত্যাগ করে ক্যাভুর সম্পত্তির ভােটাধিকাবের ভিত্তিতে একটি বুর্জোয়া রাজতন্ত্র স্থাপন করেন। এরফলে বুর্জোয়া শ্রেণীই রাজনৈতিক ক্ষমতা পায়। সমাজের দরিদ্র ও বঞ্চিত লােকেরা পদানত থাকে। ম্যাৎসিনি ইতালীর সর্বসাধারণের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির যে চিন্তা করতেন ক্যাভুর সেটা ত্যাগ করেন।

ম্যাৎসিনির অবদান (Contribution to Mazzini): ম্যাৎসিনির স্বাধীনতার প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলেও অখণ্ড ইতালি গঠনের জন্য যে মানসিক প্রস্তুতির প্রয়ােজন ছিল তিনি তার বাণী ও কর্মসুচির দ্বারা তা সম্পূর্ণ করেন। কার্বোনারি সন্ত্রাসবাদী গুপ্ত আন্দোলনের পথ তিনি পরিত্যাগ করে গণবিপ্লবী আন্দোলনের মাধ্যমে প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আদর্শ গ্রহণ করেন। ইতালি যখন একটি ভৌগােলিক সংজ্ঞা মাত্র ছিল তখন তিনি সর্বপ্রথম স্বাধীন ও অখণ্ড ইতালির স্বপ্ন দেখেছিলেন। তিনি ইতালিবাসীর মধ্যে দেশাত্মবােধ জাগ্রত করেন। কোনাে কোনাে রাজনীতিবিদ ম্যাৎসিনির মতবাদকে নিছক কল্পনাবিলাস বলে মনে করেন। এবং কেউ কেউ তার আদর্শকে অত্যন্ত চরমপন্থী বলে মনে করেছিলেন। তবে একথা অনস্বীকার্য যে তার প্রচেষ্টার ফলেই অখণ্ড ইতালির চেতনা ইতালিবাসীর অন্তরে সৃষ্টি হয়। অখণ্ড ইতালি গঠনের জন্য যে মানসিক প্রস্তুতির প্রয়ােজন ছিল তিনি তার লেখনী ও কার্যাবলির দ্বারা তা সম্পূর্ণ করেন। এ কারণে তাকে ইতালির ঐক্য আন্দোলনের মস্তিষ্ক বলা হয়। ঐতিহাসিক লিপসন বলেন, “নব্য ইতালির স্রষ্টাদের মধ্যে ম্যাৎসিনির এক অবিস্মরণীয় স্থানের অধিকারী। ম্যাৎসিনির ইতালিতে প্রজাতন্ত্র স্থাপনের জন্য সংগ্রাম করেছিলেন। ১৮৭০ খ্রিস্টাব্দে ইটালির ঐক্যসাধন সম্পূর্ণ হলেও ম্যাৎসিনির ঈপ্সিত প্রজাতন্ত্র ইতালিতে স্থাপিত হয়নি।
Advertisement