ভারতবর্ষ নামকরণের ব্যাখ্যা - Explanation of Naming of India

- July 16, 2019
ভারতবর্ষ এক প্রাচীনতম দেশ। ভারতবর্ষ বা ভারত বলতে ১৯৪৭-এর পূর্ববর্তী অবিভক্ত ভারত বা সমগ্র ভারতীয় উপমহাদেশকে বোঝানো হয়েছে। এখানে সেই অখণ্ড ভারত বা একটি অখণ্ড রাজনৈতিক একক হিসেবে ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাসই আলােচিত হয়েছে। প্রাচীন সাহিত্য রামায়ণ, মহাভারত ও বিভিন্ন পুরাণে ভারতকে দেবভূমি, পূণ্যভুমি বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে।
জম্বুদ্বীপ মানচিত্র
১) প্রাচীনকালে ভরত নামে এক রাজা এই দেশে রাজত্ব করতেন। তার নাম থেকে এ দেশের নাম হয় ভারতবর্ষ এবং ভারতবাসীকে বলা হয় ভারতের সন্তান।

২) বিষ্ণুপুরাণ বলা হয়েছে যে, যে দেশ সমুদ্রের উত্তর ও হিমালয়ের দক্ষিণে, তার নাম ভারতবর্ষ। এখানে যারা বাস করেন তারা ভারতী বা ভারত সন্ততি নামে পরিচিত।

৩) আধুনিক ঐতিহসিক ডঃ রামশরণ শর্মা বলেন যে, ভরত নামে এক প্রাচীন উপজাতির নাম অনুসারে এই দেশের নাম হয় ভারতবর্ষ এবং ভারতবর্ষের মানুষকে বলা হয় ভরত সন্ততি (ভরতের উত্তর পূরুষ)।

৪) প্রাচীন বিশ্বতত্ত্ববিদগণ সমগ্র পৃথিবীকে সাতটি মহাদ্বীপে বিভক্ত করেন। জম্বুদ্বীপ হল এই সপ্তদ্বীপের অন্যতম। জম্বুদ্বীপ আবার কয়েকটি দ্বীপ বা বর্ষ নিয়ে গঠিত এবং এর মধ্য একটি হল ভারত নামে বর্ষ। অশোকের শিলালিপি, বিভিন্ন বৌদ্ধগ্রন্থ, মহাভারত ও পুরাণে জম্বুদ্বীপের উল্লেখ পাওয়া যায়। মহাভারতের বর্ণনায় জম্বুদ্বীপ হল চারটি মহাদেশ সূচক দ্বীপের একটি এবং এর একটি বর্ষ বা অংশের নাম ভারতবর্ষ। বিভিন্ন পুরাণেও জম্বুদ্বীপের এক বর্ষ হিসেবে ভারতবর্ষের নাম করা হয়েছে।

৫) বিদেশিদের কাছে ভারতবর্ষ দেশ ইন্ডিয়া নামে পরিচিত। এই নামটি সংস্কৃত সিন্ধু থেকে উদ্ভূত। বিদেশিরা সিন্ধু নদের তীরবর্তী ভারতীয়দের সঙ্গে প্রথম পরিচিত হয়েছিল এবং সিন্ধু নদের নাম অনুসারেই তারা দেশটির নামকরণ করে।

৬) প্রাচীন পারসিকরা সিন্ধু-কে উচ্চারণ করত হিন্দু। এ থেকেই সে যুগে ভারতীয়দের সাধারণ নাম হয় হিন্দু এবং কালক্রমে এ দেশের নাম হয় হিন্দুস্তান বা হিন্দুদের বাসভূমি। গ্রিক ও রােমানরা হিন্দু-কে উচ্চারণ করত ইন্দুস (Indus) বলে। প্রাচীন এই ইন্দুস থেকেই আধুনিক ইণ্ডিয়া নামের উৎপত্তি।
Advertisement