PayPal

হুন আক্রমণ।

author photo
- Thursday, February 28, 2019

দুর্ধর্ষ হুন জাতি।

হুন (ইংরেজি:Huns) শব্দের অর্থ হল উপযুক্ত, অস্থির, গুরুতর, মনোযোগী, আনন্দদায়ক। খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতকে হুনরা চীন সীমান্তে বাস করত। তারা ছিল অতি দুর্ধর্ষ ও নিষ্ঠুর প্রকৃতির যাযাবর উপজাতি। হত্যা ও লুণ্ঠন ছিল তাদের সহজাত। তারা তৃণভূমির সন্ধানে হুনরা পশ্চিমদিকে অগ্রসর হয়। এই সময় তারা দুটি দলে বিভক্ত হয়। একটি দল ইউরোপে প্রবেশ করে।


চীনের ইতিহাস থেকে জানা যায়, হুনদের একটি দল চীনের হান রাজ্যের সীমান্ত বরাবর পৌঁছায়। হান সরকার হুন জাতির অভিজাত সম্প্রদায়ের সঙ্গে বিয়ের মাধ্যমে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করে শান্তি বজায় রাখার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু হুন জাতির সর্দাররা অন্য লোকের প্ররোচনায় হান রাজ্যের সঙ্গে সুসম্পর্ক ছিন্ন করে ফেলে। খ্রিষ্টপূর্ব ১৫৮ খ্রিষ্টাব্দে হুন জাতির যোদ্ধারা, হান রাজ্যের সীমান্ত অঞ্চল আক্রমণ করে। এই সময় তারা স্থানীয় অধিবাসীদের হত্যা করে এবং তাদের সম্পত্তি বা করে। ১৫০ খ্রিষ্টাব্দের দিকে হুনরা ককেশাস অঞ্চলে বৃহৎ জাতিতে পরিণত হয়। ৩৭০ খ্রিষ্টাব্দের ভিতরে হুনরা ভোলগা নদীর তীরে বসবাস করা শুরু করে।


৩৭০ খ্রিষ্টাব্দের পরে হুনরা ভোলগা নদী অতিক্রম করে, কৃষ্ণসাগরের তীরবর্তী এ্যালন জাতির এলাকায় প্রবেশ করে। হুনরা এই অঞ্চলের এ্যালনদের সাথে মিলিত হয়ে একটি মিশ্র জাতিসত্তা সৃষ্টি করে। একসময় এই মিলিত জাতি হুন নামেই পরিচিতি লাভ করে। এই সময় হুনরা নিকটবর্তী গথিক রাজ্যের বসতি স্থাপন শুরু করে। এই সময় গথিক রাজা এর্মানারিক (Ermanaric) আত্মহত্যা করলে তার ভাইয়ের ছেলে ভিথিমিরিস (vithimiris) রাজত্ব লাভ করে। ভিথিমিরিস হুন এবং এ্যালনদের বিতাড়িত করতে গেলে যুদ্ধের সূত্রপাত হয়। এই যুদ্ধে ভিথিমিরিস পরাজিত ও নিহত হন। গথিকরা এরপর এই অঞ্চল থেকে বিতারিত হয়। ভিথিমিরিস-এর একমাত্র পুত্র ভিডেরিকাস (Viderecus) তাঁর সেনাবহিনীর সাথে দেশত্যাগ করেন। এরপর হুনরা ভিজিগথ (Visigoth) অঞ্চলে প্রবেশ করে। ৩৭৬ খ্রিষ্টাব্দে গথিক জাতির সাথে হুন জাতির যুদ্ধ শুরু হয়। এই যুদ্ধে গথিক রাজা পরাজিত হয় এবং আত্মহত্যা করে। এরপর হুনরা এথানারিক রাজ্য আক্রমণ করে। এই যুদ্ধে এথানারিকরা পরাজিত হয়ে তাদের রাজ্য ত্যাগ করে কার্পেথিয়ানস-এ প্রবেশ করে। এই যুদ্ধের পর রোমানরা এদেরকে বহিরাগত জাতি হিসেবে আখ্যায়িত করে। ৩৮০ খ্রিষ্টাব্দে হুনরা প্যানোনিয়া অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে। ৩৯৫ খ্রিষ্টাব্দে হুনরা রোমান সাম্রাজ্যের পূর্বাঞ্চলে ব্যাপক আক্রমণ করে। ৪৬৯ খ্রিষ্টাব্দের দিকে ইউরোপ ও মধ্যপ্র্যাচ্যের একটি বিশাল অংশ জুড়ে রাজত্ব করতে সক্ষম হয়। এরা কৃষ্ণ হুন নামে পরিচিত। তাদের নেতা ছিল অ্যাটিলা


হুনদের অপর শাখাটি খ্রিষ্টীয় পঞ্চম শতাব্দীর মধ্যভাগে আমুদরিয়া বা অক্ষু নদীর উপত্যকায় বসতি স্থাপন করে। তারা শ্বেত হুন নামে পরিচিত। স্কন্দগুপ্তের আমলে তারা ভারতের পশ্চিমাঞ্চল আক্রমণ করে। স্কন্দগুপ্ত তাদের পরাজিত করে কাবুল ও পারস্য অধিকার করে এবং পারস্যর সাসানিয়া বংশের অধিপতি ফিরোজ তাদের হাতে নিহত হয়। কাবুল ও পারস্য জয়ের ফলে হুনদের শক্তি বৃদ্ধি পায় এবং বালখ-কে কেন্দ্র করে তারা সাম্রাজ্য স্থাপন করে।

খ্রিষ্টীয় পঞ্চম শতকের শেষ ভাগে হুনরা আবার ভারত আক্রমণ করে। এই সময় হুনদের নেতা ছিল তোরমান। এরাণ শিলালিপি থেকে জানা যায়, তোরমান ৫১০ সালে গুপ্ত সম্রাট ভানুগুপ্তের হাতে পরাজিত হন। তোরমান মহারাজাধিরাজ উপাধি নেন। তিনি ধন্যবিষ্ণু মন্দির নির্মাণ করেন। তিনি শেষ জীবণে জৈনধর্ম গ্রহণ করে, চেনাব নদীর উপকূলে বাস করতে থাকে।

তোরমানের পুত্র মিহিরকুল ছিলেন হুনদের পরবর্তী সম্রাট। মিহিরকুলের রাজধানী ছিল শাকল বা শিয়ালকোট। তিনি বৌদ্ধ বিদ্বেষী ছিলেন। তিনি প্রচুর বৌদ্ধ মঠ ও মন্দির ধ্বংস করেন। মিহিরকুলের মৃত্যুর (৫৪২ খ্রিস্টাব্দ) পর হুনরা দুর্বল হয়ে পড়ে এবং উত্তর পশ্চিম সীমান্ত অঞ্চলের বিভিন্ন অংশে কয়েকটি গোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়ে পড়ে। থানেশ্বরের পুষ্যভূতি ও কনৌজের মৌখরি বংশের আক্রমণের ফলে হুনরা দুর্বল হয়ে পড়ে। পরে এরা আর মধ্য এশিয়ার দিকে ফিরে যায় নি। স্থানীয় রাজপুতদের সাথে মিশে গিয়ে পুরোপুরি ভারতীয় হয়ে যায়। কলহনের রাজতরঙ্গিনী-তে মিহিরকুলের নিষ্ঠুরতা ও রাজ্যজয়ের পরিচয় পাওয়া যায়। হিউয়েন সাঙ এর মতে মিহিরকুল সমগ্র ভারত জয় করেছিলেন। রাজতরঙ্গিনীর মতে, গান্ধার, কাশ্মীর, দক্ষিণ ভারত ও সিংহল জয় করেন। যশোধর্মনের মান্দাশোর লিপি থেকে জানা যায় যে, ৫৩১ খ্রিষ্টাব্দে এক যুদ্ধে তিনি মিহিরকুলকে পরাজিত করে। হিউয়েন সাঙ বলেন, গুপ্ত সম্রাট নরসিংহ গুপ্ত (বালাদিত্য) মিহিরকুলকে ৫৩৩ খ্রিষ্টাব্দে পরাজিত করে। মিহিরকুল ছিলেন শিবের উপাসক। মিহিরকুলকে বলা হয় ভারতের এটিলা। গোয়ালিয়র লিপি থেকে জানা যায়, মিহিরকুল সূর্য মন্দির নির্মাণ করেন।

No comments:

Post a Comment