September 27, 2018

ভারতের ইতিহাস পরীক্ষার ছোটো প্রশ্ন ও উত্তর।

ইতিহাসের SSC, IAS, PSC, UPSC, WBCS, SLST মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক ছোটো প্রশ্ন ও উত্তর - [ MCQ Short questions and answers]:


প্রশ্ন:- নব্য প্রস্তর যুগের বিপ্লব কী?

উত্তর:- এই পর্বের মানুষ খাদ্য সংগ্রাহক থেকে খাদ্য উৎপাদক হয়ে ওঠে।


প্রশ্ন:- রেডিও কার্বন -১৪ পদ্ধতি কী?

উত্তর:- কাল নীর্ণয়ের সবচেয়ে নির্ভযোগ্য আধুনিক পদ্ধতি।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার পথিকৃৎ কাকে বলে?

উত্তর:- মেহেরগড় সভ্যতাকে।

প্রশ্ন:- মেহেরগড় কোথায় অবস্থিত?

উত্তর:- পাকিস্থানের বেলুচিস্তান প্রদেশের বোলান নদীর তীরে অবস্থিত।

প্রশ্ন:- মেহেরগড় সভ্যতা কবে আবিষ্কার হয়?

উত্তর:- ১৯৭৪ খ্রি:।

প্রশ্ন: মেহেরগড় সভ্যতার প্রধান কেন্দ্রগুলি কী কী?

উত্তর:- কিলে গুল মহাম্মদ, কোটদিজি, গুমলা, মুন্ডিগাক, রানাঘুণ্ডাই, অঞ্জীরা এবং মেহেরগড়।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতার প্রধান কেন্দ্রগুলি কী কী?

উত্তর:- মহেঞ্জোদারো, হরপ্পা, রূপার, লোথাল ইত্যাদি।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতা কোন যুগের সভ্যতা?

উত্তর:- প্রাগৈতিহাসিক যুগের সভ্যতা।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতার কোথায় দুর্গ পাওয়া গেছে?

উত্তর:- মহেঞ্জোদারো, হরপ্পা ও কলিবাঙ্গনে।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতার প্রধান জীবিকা কী ছিল?

উত্তর:- কৃষি।

প্রশ্ন:- হরপ্পাবাসী কোন কোন দেশের সাথে ব্যাবসা করত?

উত্তর:- সূমের, আক্বদ ও মেসোপটেমিয়া।

প্রশ্ন:- মেলুহা কী?

উত্তর:- মেসোপটেমিয়ার লোকেরা সিন্ধু সভ্যতাকে মেলুহা বলে ডাকত।

প্রশ্ন:- 'বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্য' - বিবিধ বৈষম্যর মধ্যে ভারতের ঐক্য বোধকে কে একথা বলে অভিহিত করেছেন?

উত্তর:- ভিনসেন্ট স্মিথ।

প্রশ্ন:- মিশর সভ্যতা কোন নদকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠেছে?

উত্তর:- নীলনদকে কেন্দ্র করে।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতায় কোন কোন ধাতুর জিনিস পাওয়া গেছে?

উত্তর:- তামা, ব্রোঞ্জ ও টিন।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতার পর ভারতে যে সভ্যতার বিকাশ হয় তার নাম কী?

উত্তর:- আর্য বা বৈদিক সভ্যতা।

প্রশ্ন:- সিন্ধু অধিবাসীরা কিসের পূজা করতো?

উত্তর:- শক্তি পূজা বা মাতৃ পূজা।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতাবাসীদের কোন ধাতুর ব্যবহার জানত না?

উত্তর:- লোহা।

প্রশ্ন:- মেহেরগড় সভ্যতার আবিষ্কারকের নাম কী?

উত্তর:- বিখ্যাত ফরাসি প্রত্নতত্ত্ববিদ জেন ফ্রাঁসোয়া জারেজ ও তার সহকর্মী রিচার্ড মিডো মেহেরগড় সভ্যতা আবিষ্কার করেন ।

প্রশ্ন:- ব্রিটিশ ভারতের ইতিহাস কে লেখেন?

উত্তর:- জেমস মিল।

প্রশ্ন:- লিখিত উপাদানগুলি কি কি?

উত্তর:- দেশিয় সাহিত্য ও বৈদেশিক সাহিত্য।

প্রশ্ন:- ভারতের প্রাচীনতম সভ্যতা কী?

উত্তর:- সিন্ধু সভ্যতা।

প্রশ্ন:- ভিমভেটকার কোথায় অবস্থিত ?

উত্তর:- মধ্যপ্রদেশ।

প্রশ্ন:- মহেঞ্জোদারো কোথায় অবস্থিত?

উত্তর:- বর্তমানে সিন্ধু প্রদেশের লারকান জেলায় মহেঞ্জোদারো অবস্থিত।



প্রশ্ন:- মহেঞ্জোদারো কোন নদীর তীরে অবস্থিত?

উত্তর:- সিন্ধু নদীর তীরে অবস্থিত।

প্রশ্ন:- মহেঞ্জোদারো কে, কবে আবিষ্কার করেন?

উত্তর:- ১৯২২ খ্রিস্টাব্দ বাঙালি প্রত্নতাত্বিক রাখলদাস বন্দোপাধ্যায় আবিষ্কার করেন।

প্রশ্ন:- মহেঞ্জোদারো কথার অর্থ কী?

উত্তর:- মৃতের স্তূপ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা বা সিন্ধু কোথায় অবস্থিত?

উত্তর:- পাঞ্জাবের মন্টগোমারী জেলায়।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতা কোন নদীর তীরে অবস্থিত?

উত্তর:- রাভি নদীর তীরে অবস্থিত।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতা কে, কবে আবিষ্কার করেন?

উত্তর:- ১৯২১ খ্রিস্টাব্দ দায়ারাম সহানি আবিষ্কার করেন।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার খাদ্য কি ছিল?

উত্তর:- ধান, গম, জব ও বাদাম।

প্রশ্ন:- মাদ্রাজ সংস্কৃতি কী?

উত্তর:- দক্ষিণ ভারতের মাদ্রাজে এই সভ্যতার নিদর্শন পাওয়া যায়, তাই একে মাদ্রাজ সংস্কৃতি বলে।

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের উপাদান কত প্রকার ও কি কি?

উত্তর:- দুই প্রকার। যথা, লিখিত ও প্রত্নতাত্বিক উপাদান।

প্রশ্ন:- ভারতীয় সভ্যতা কত প্রাচীন?

উত্তর:- ভারতীয় সভ্যতা প্রায় ৮৫০০ বছরের প্রাচীন ।

প্রশ্ন:- ভারতের কোন কোন স্থানে প্রাচীন প্রস্তরযুগের নিদর্শন আবিষ্কৃত হয়েছে?

উত্তর:- ভারতের পশ্চিম পাঞ্জাব ও দক্ষিণ ভারতের তামিলনাড়ু অঞ্চলে প্রাচীন প্রস্তরযুগের নিদর্শন আবিষ্কৃত হয়েছে ।

প্রশ্ন:- ভারতের সবচেয়ে প্রাচীন সভ্যতার নাম কী?

উত্তর:- ভারতের সবচেয়ে প্রাচীন সভ্যতার নাম মেহেরগড় সভ্যতা ।

প্রশ্ন:- প্রস্তর যুগ কাকে বলে?

উত্তর:- যে যুগের মানুষ পাথরের হাতিয়ার ব্যবহার করত, তাকে প্রস্তর যুগ বলা হয়।



প্রশ্ন:- প্রস্তর যুগ কত প্রকার ও কী কী?

উত্তর:- প্রস্তর যুগ তিন প্রকার। যথা, প্রাচীন প্রস্তর যুগ, মধ্য প্রস্তর যুগ এবং নব্য প্রস্তর যুগ।

প্রশ্ন:- কোন যুগের মানুষ আগুনের ব্যবহার শেখে?

উত্তর:- নব্য প্রস্তর যুগে।

প্রশ্ন:- কোন যুগের মানুষ প্রথম কুমোরের চাকা আবিষ্কার করেন?

উত্তর:- নব্য প্রস্তর যুগে যুগের মানুষ।

প্রশ্ন:- সোয়ান সংস্কৃতি কী?

উত্তর:- পাঞ্জাবের সোয়ান নদীর অববাহিকা অঞ্চলে এই সংস্কৃতি দেখা যায়, তাই একে সোয়ান সংস্কৃতি বলা হয়।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতা ভারতের কোন প্রাক ঐতিহাসিক যুগের সভ্যতার নিদর্শন?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতা ভারতের তাম্রপ্রস্তর যুগের সভ্যতার নিদর্শন।

প্রশ্ন:- পশুপালনের ওপর ভিত্তি করে ভারতবর্ষের কোন সভ্যতা গড়ে উঠেছিল?

উত্তর:- পশুপালনের ওপর ভিত্তি করে ভারতবর্ষের মেহেরগড় সভ্যতা গড়ে উঠেছিল ।

প্রশ্ন:- মেহেরগড় সভ্যতার প্রকৃতি কী ধরনের ছিল?

উত্তর:- মেহেরগড় সভ্যতা ছিল কৃষিভিত্তিক।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার পতন ঘটে কবে?

উত্তর:- ১৫০০-১৪০০ খ্রিষ্টপূর্ব নাগাদ হরপ্পা সভ্যতার পতন ঘটে।

প্রশ্ন:- হরপ্পার যুদ্ধ কোনটিকে বলা হয়?

উত্তর:- ঋগবেদে বর্ণিত হরিযুপীয়ার যুদ্ধকে হুইলার 'হরপ্পা যুদ্ধ' বলেন।

প্রশ্ন:- ঋগবেদে দেবরাজ ইন্দ্রকে কি বলা হয়?

উত্তর:- পুরন্দর বা নগরের ধ্বংসকারী।

প্রশ্ন:- আর্য আক্রমণের তত্ত্বকে কে অস্বীকার করেন?

উত্তর:- ম্যাকে।

প্রশ্ন:- প্রাগৈতিহাসিক যুগ কাকে বলে?

উত্তর:- যে সময়কালে মানব সমাজের কোনো লিখিত ইতিহাস বা কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না, তাকে প্রাগৈতিহাসিক।

প্রশ্ন:- প্রায়-ঐতিহাসিক যুগ কাকে বলে?

উত্তর:- যে সময়ের মানুষের লিখিত উপাদান পাওয়া গেছে, কিন্তু তা পাঠ করা সম্ভব হয়নি, তাকে প্রায়-ঐতিহাসিক যুগ বলে।



প্রশ্ন:- কোন যুগকে প্রস্তর যুগ বলা হয়?

উত্তর:- প্রাগৈতিহাসিক যুগকে।

প্রশ্ন:- সিন্ধু বা হরপ্পা সভ্যতার নিদর্শন কে আবিস্কার করেন?

উত্তর:- ১৯২১-১৯২২ খ্রি: প্রত্নতত্ত্ববিদ রাখালদাস বন্দোপাধ্যায় ও দয়ারাম সাহানি যথাক্রমে সিন্ধু সভ্যতা নিদর্শন আবিস্কার করেন।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার যন্ত্রপাতি কোন ধাতুতে নির্মিত?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতার যন্ত্রপাতি তামা ও টিন -এর সংমিশ্রণে প্রস্তুত ব্রোঞ্জ ধাতু দিয়ে নির্মিত ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতা কী ধরনের সভ্যতা?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতা ছিল একটি নগরকেন্দ্রিক ও কৃষিভিত্তিক সভ্যতা ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার মূল ভিত্তি কী ছিল?

উত্তর:- প্রকৃতিগত ভাবে হরপ্পা সভ্যতা একটি নগর কেন্দ্রিক সভ্যতা হলেও হরপ্পা সভ্যতার মূল ভিত্তি ছিল কৃষি ও পশুপালন।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার মানুষেরা কোন পশুর ব্যবহার জানত না?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতার মানুষেরা ঘোড়ার ব্যবহার জানত না ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতা কত দিন আগে গড়ে উঠেছিল?

উত্তর:- খ্রিস্টপূর্ব প্রায় তিন হাজার বৎসর আগে হরপ্পা সভ্যতা গড়ে উঠেছিল ।

প্রশ্ন:- ভারতবর্ষে প্রাক আর্যযুগের প্রাচীনতম বন্দরের নিদর্শন কোথায় পাওয়া গেছে?

উত্তর:- গুজরাটের লোথাল-এ প্রাক আর্যযুগের প্রাচীনতম বন্দরের নিদর্শন কোথায় পাওয়া গেছে।

প্রশ্ন:- ভারতের প্রথম নগরায়নের চিহ্ন কোন অঞ্চলের ধ্বংসাবশেষ থেকে পাওয়া গেছে?

উত্তর:- হরপ্পা-মহেঞ্জোদারো অঞ্চলের ধ্বংসাবশেষ থেকে ভারতের প্রথম নগরায়নের চিহ্ন পাওয়া গেছে ।

প্রশ্ন:- ভারতের প্রথম নগরায়নের যুগের একটি শহরের নাম লেখো?

উত্তর:- ভারতের প্রথম নগরায়নের যুগের একটি শহরের নাম মহেঞ্জোদারো ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতা কবে আবিস্কৃত হয়?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতা ১৯২৪ সালে আবিস্কৃত হয় ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার কালসীমা লেখো?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতার কালসীমা হল ৩,০০০ - ১,৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ ।

প্রশ্ন:- সিন্ধু সভ্যতা আবিস্কারের সঙ্গে জড়িত একজন প্রত্নতাত্ত্বিকের নাম লেখো?

উত্তর:- বাঙালি প্রত্নতত্ত্ববিদ রাখালদাস বন্দোপাধ্যায় সিন্ধু সভ্যতা আবিস্কার করেন ।



প্রশ্ন:- ভারতবর্ষের প্রাচীনতম বন্দর কোনটি?

উত্তর:- ভারতবর্ষেরর প্রাচীনতম বন্দরের নাম গুজরাটের লোথাল ।

প্রশ্ন:- রাজস্থানের কোন অঞ্চলে সিন্ধু সভ্যতার নিদর্শন পাওয়া গেছে?

উত্তর:- রাজস্থানের কালিবঙ্গান অঞ্চলে সিন্ধু সভ্যতার নিদর্শন পাওয়া গেছে ।

প্রশ্ন:- কোন বন্দরের মাধ্যমে হরপ্পা-সভ্যতার বৈদেশিক বাণিজ্য চলত?

উত্তর:- লোথাল বন্দরের মাধ্যমে হরপ্পা-সভ্যতার বৈদেশিক বাণিজ্য চলত ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা-সভ্যতার লিপির নাম কি?

উত্তর:- হরপ্পা-সভ্যতার লিপির নাম সিন্ধুলিপি ।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতা কোন সভ্যতার সমসাময়িক?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতা মেসোপটেমিয়া এবং সুমেরীয় সভ্যতার সমসাময়িক ।

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতে কারা আর্য নামে পরিচিত?

উত্তর:- আর্যরা ছিল ভারতের বহিরগত দীর্ঘকায় গৌরবর্ণ ও সুদর্শন এক জাতি-যাদের আদি বাসস্থান ছিল মধ্য এশিয়া অথবা রাশিয়ার দক্ষিণাঞ্চল কিংবা ইউরোপ মহাদেশের অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরী অথবা চেকোস্লোভাকিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে।

প্রশ্ন:- আর্যরা প্রথম কবে ভারতে আসে?

উত্তর:- আনুমানিক ১,৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে আর্যরা প্রথম ভারতে আসে।

পড়ুন: প্রাচীন ভারতের প্রস্তর যুগ।

প্রশ্ন:- আর্যরা প্রথম ভারতে কোথায় বসতি স্থাপন করে?

উত্তর:- উত্তর ভারতের সিন্ধু নদের পাঁচটি উপনদী, সরস্বতী এবং উচ্চ গাঙ্গেয় উপত্যকায় সপ্তসিন্ধু অঞ্চলে আর্যরা প্রথম ভারতে বসতি স্থাপন করে ।

প্রশ্ন:- আর্যদের স্বর্ণমুদ্রার নাম কী?

উত্তর:- আর্যদের স্বর্ণমুদ্রার নাম হল নিষ্ক ও মনা।

প্রশ্ন:- আর্যদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম কী?

উত্তর:- আর্যদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম বেদ ।

প্রশ্ন:- ভারতের প্রাচীনতম সাহিত্য কোনটি?

উত্তর:- ভারতের প্রাচীনতম সাহিত্য হল বেদ ।



প্রশ্ন:- বিশ্বের দরবারে হরপ্পা সভ্যতার প্রথম অবদানটির নাম লেখো?

উত্তর:- বিশ্বের দরবারে হরপ্পা সভ্যতার প্রথম অবদান হল উন্নত নগর পরিকল্পনা ।

প্রশ্ন:- কোন সভ্যতা হরপ্পা সংস্কৃতির পথিকৃত ছিল?

উত্তর:- মেহেরগড় সভ্যতা হরপ্পা সংস্কৃতির পথিকৃত ছিল।

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের দুটি নগরের নাম লেখো?

উত্তর:- প্রাচীন ভারতের দুটি নগরের নাম হরপ্পা ও লোথাল ।

প্রশ্ন:- বেদ করা রচনা করে?

উত্তর:- বশিষ্ঠ, বিশ্বামিত্র, বামদেব, ভরদ্বাজ প্রমুখ।

প্রশ্ন:- বেদের অপর নাম কী?

উত্তর:- বেদের অপর নাম শ্রুতি ।

পড়ুন: প্রাচীন ভারতের লৌহ যুগ।

প্রশ্ন:- আর্যদের প্রাচীনতম গ্রন্থ কোনটি?

উত্তর:- প্রাচীনতম গ্রন্থ হল ঋকবেদ ।

প্রশ্ন:- ঋকবৈদিক যুগের প্রধান দেবতার নাম কী?

উত্তর:- ঋকবৈদিক যুগের প্রধান দেবতার নাম অগ্নি।

প্রশ্ন:- মহাবীরের প্রকৃত নাম কী?

উত্তর:- বর্ধমান।

প্রশ্ন:- বেদের শেষ ভাগের নাম কী?

উত্তর:- বেদের শেষ ভাগের নাম অথর্ব।

প্রশ্ন:- ত্রিপিটক কোন ভাষায় লেখা হয়?

উত্তর:- পালি ভাষায় লেখা।

প্রশ্ন:- বৈদিক সাহিত্যের কোন অংশকে বেদান্ত বলা হয়?

উত্তর:- উপনিষদ কে বৈদিক সাহিত্যের বেদান্ত বলা হয়।

প্রশ্ন:- বেদ কবে রচিত হয়?

উত্তর:- খ্রিষ্টপূর্ব ১,৫০০ - ১০০০ অব্দের মধ্যে বেদ রচনা করা হয় বলে অনুমান করা হয়ে থাকে ।

প্রশ্ন:- বেদের কয়টি ভাগ আছে ও কী কী?

উত্তর:- বেদের চারটি ভাগ আছে - যথা ঋক,সাম,যজু, ও অথর্ব ।

প্রশ্ন:- প্রত্যেক বেদের কয়টি অংশ ও কী কী?

উত্তর:- প্রত্যেক বেদের চারটি অংশ , যথা: সংহিতা , ব্রাহ্মণ, আরন্যক এবং উপনিষদ বা বেদান্ত ।

পড়ুন: প্রাচীন ভারতের নব্য প্রস্তর যুগের সময়সীমা ও বৈশিষ্ট্য।

প্রশ্ন:- কী ভাবে বেদ কথাটির উৎপত্তি হয়?

উত্তর:- বিদ শব্দ থেকে বেদ কথাটির উৎপত্তি হয় , বিদ শব্দের অর্থ হল জ্ঞান ।

প্রশ্ন:- গৃহপতি বা কুলপা কাকে বলা হত?

উত্তর:- বৈদিক যুগের কোনো পরিবারের কর্তাকে গৃহপতি বা কুলপা বলা হত ।

প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের কয়েক জন বিদুষী নারীর নাম করো ?

উত্তর:- বৈদিক যুগের কয়েক জন বিদুষী নারীর নাম হল অন্ডালা, ঘোষ, মমতা, লোপামুদ্রা প্রভৃতি।

প্রশ্ন:- আর্যদের চতুরাশ্রমের প্রথম আশ্রমের নাম কী?

উত্তর:- আর্যদের চতুরাশ্রমের প্রথম আশ্রমের নাম ব্রহ্মচর্য।

প্রশ্ন:- আর্যদের চতুরাশ্রমের সর্বশেষ আশ্রমের নাম কী?

উত্তর:- আর্যদের চতুরাশ্রমের সর্বশেষ আশ্রমের নাম সন্ন্যাসাশ্রম ।

প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের প্রচলিত মুদ্রার নাম কী ?

উত্তর:- বৈদিক যুগের প্রচলিত মুদ্রার নাম 'নিষ্ক' ও 'মনা' ।

প্রশ্ন:- ঋকবৈদিক যুগের সমাজে কৃষক ছাড়াও অপর কয়েকটি বৃত্তিজীবি মানুষের নাম করো?

উত্তর:- ঋকবৈদিক যুগের সমাজে কৃষক ছাড়াও অপর কয়েকটি বৃত্তিজীবি মানুষের নাম হল সূত্রধর,চর্মকার,ছুতোর,তাঁতি,কুমোর,প্রভৃতি।

প্রশ্ন:- বৈদিক যুগে বিনিময়ের প্রধান মাধ্যম কী ছিল?

উত্তর:- বৈদিক যুগে বিনিময়ের প্রধান মাধ্যম ছিল গোরু ।

প্রশ্ন:- আর্যদের বিনিময় প্রথার প্রধান মাধ্যম কী ছিল?

উত্তর:- আর্যদের বিনিময় প্রথার প্রধান মাধ্যম ছিল গরু।

পড়ুন: প্রাক হরপ্পা যুগের মেহেরগড় সভ্যতার।

প্রশ্ন:- বৈদিক সভ্যতা কী ?

উত্তর:- বেদকে ভিত্তি করে যে সভ্যতা গড়ে ওঠেছে তাই বৈদিক সভ্যতা।

প্রশ্ন:- বৈদিক সভ্যতার স্রষ্টা কারা?

উত্তর:- বৈদিক সভ্যতার স্রষ্টা হল আর্যরা ।

প্রশ্ন:- ঋকবেদে বলি শব্দটি কী অর্থে ব্যবহৃত হত?

উত্তর:- ঋকবেদে বলি শব্দটি কর নেওয়া অর্থে ব্যবহৃত হত ।

প্রশ্ন:- উপনিষদ কী ?

উত্তর:- উপনিষদ হল বেদের একটি অন্যতম দার্শনিক বিভাগ।



প্রশ্ন:- চতুর্বেদ ছাড়াও অপর একটি বৈদিক সাহিত্যের নাম করো?

উত্তর:- চতুর্বেদ ছাড়াও অপর একটি বৈদিক সাহিত্যের নাম বেদাঙ্গ ।

প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের দুটি জনসভার নাম করো যারা রাজশক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারত?

উত্তর:- সভা ও সমিতি-নামে দুটি জনসভা রাজশক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারত।

প্রশ্ন:- ভারতের ভাষাসমূহ জননী কাকে বলে?

উত্তর:- সংস্কৃতি ভাষা।

প্রশ্ন:- বৈদিক আর্যদের প্রধান ভাষা কী ছিল?

উত্তর:- বৈদিক আর্যদের প্রধান ভাষা ছিল সংস্কৃত।

প্রশ্ন:- ভারতকে বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্য কে বলেছেন?

উত্তর:- ড: স্মিথ।

প্রশ্ন:- দশরাজার যুদ্ধ কাহিনী কোথায় লিপিবদ্ধ আছে?

উত্তর:-দশরাজার যুদ্ধ কাহিনী ঋকবেদে লিপিবদ্ধ আছে।

পড়ুন: হরপ্পা সভ্যতা বা সিন্ধু সভ্যতার ইতিহাস।

প্রশ্ন:- ভারতকে মহামানবের সাগর কে বলেছেন ?

উত্তর:- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের প্রধান উপাস্য দেবতা কারা ছিলেন?

উত্তর:- বৈদিক যুগের প্রধান উপাস্য দেবতা ছিলেন পৃথিবী, মরুৎ, রুদ্র, অগ্নি, উষা, ইন্দ্র, সূর্য প্রভৃতি।

প্রশ্ন:- ভারতকে নৃতাত্ত্বিক জাদুঘর কে বলেছেন?

উত্তর:- ড: ভিনসেন্ট স্মিথ।

প্রশ্ন:- পরবর্তী বৈদিকযুগের দু-জন বিদুষী নারীর নাম করো?

উত্তর:- পরবর্তী বৈদিকযুগের দু-জন বিদুষী নারীর নাম হল মৈত্রেয়ী ও গার্গী।

প্রশ্ন:- পাটালিপুত্র নগর কোথায় গড়ে ওঠে ?

উত্তর:- গঙ্গা ও শোন নদের তীরে।

প্রশ্ন:- পরবর্তী বৈদিকযুগে উদ্ভুত দুটি নগরের নাম করো?

উত্তর:- পরবর্তী বৈদিকযুগে উদ্ভুত দুটি নগরের নাম হস্তিনাপুর ও কৌশাম্বী ।

প্রশ্ন:- প্রাচীন ভারতের কোন যুগে প্রথম গিল্ড বা ব্যবসায়ী সংঘ গড়ে ওঠে?

উত্তর:- প্রাচীন ভারতের পরবর্তী বৈদিক যুগে প্রথম গিল্ড বা ব্যবসায়ী সংঘ গড়ে ওঠে।

প্রশ্ন:- নীলনদের দান কাকে বলে?

উত্তর: মিশরকে।



প্রশ্ন:- বৈদিক যুগের শেষের দিকে ধনশালী বণিক শ্রেণীকে কী বলা হত?

উত্তর:- বৈদিক যুগের শেষের দিকে ধনশালী বণিক শ্রেণীকে শ্রেষ্ঠী বা সেটঠি বলা হত।

পড়ুন: হরপ্পা সভ্যতার পতনের পরিবেশগত কারণ।

প্রশ্ন:- কোন পর্বতমালা উত্তর ভারতকে দক্ষিণ ভারতকে বিচ্ছিন্ন করেছে?

উত্তর:- বিন্ধ্য পর্বতমালা।

প্রশ্ন:- গৃহপতি বলতে কী বোঝো ?

উত্তর:- বৈদিক পরবর্তী যুগে গ্রামাঞ্চলে গৃহপতি নামে একটি অত্যন্ত বিত্তশালী কৃষক সম্প্রদায়ের উৎপত্তি হয়েছিল এবং এরা সাধারণত বৈশ্য শ্রেণীভুক্ত ছিল।

প্রশ্ন:- বৌদ্ধ ধর্মে ত্রিরত্ন কি ?

উত্তর:- বুদ্ধ, ধর্ম ও সংঘ এই তিনটি কে একসঙ্গে ত্রিরত্ন বলে।

প্রশ্ন:- শ্রেষ্ঠী বা সেটঠি বলতে কী বোঝো ?

উত্তর:- বৈদিক পরবর্তী যুগে বৈশ্য সম্প্রদায়ের মধ্যে অত্যন্ত বিত্তশালী বণিক শ্রেণীর উৎপত্তি হয় এবং এরা শ্রেষ্ঠী বা সেটঠি নামে পরিচিত।

প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে, কবে, কোথায় এবং কার সভাপতিত্বে প্রথম বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়?

উত্তর:- আনুমানিক খ্রিষ্টপূর্ব 486 অব্দ অজাতশত্রু আমলে, রাজগৃহে, মহাকাশ্যপ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে, কবে, কোথায় এবং কার সভাপতিত্বে দ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়?

উত্তর:- আনুমানিক খ্রিষ্টপূর্ব 386 অব্দ কালাশোকের রাজত্বকালে দ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় বৈশালী। এর সভাপতি ছিলেন মহাস্থবির যস।

প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে, কবে, কোথায় এবং কার সভাপতিত্বে তৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়?

উত্তর:- আনুমানিক খ্রিষ্টপূর্ব 251 অব্দ অশোকের রাজত্বকালে তৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়, পাটালিপুত্রে, মগ্লিপুত্র তিসিস এর সভাপতিত্বে।

পড়ুন: হরপ্পা বা সিন্ধু সভ্যতার পতনের কারণ।

প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে, কবে, কোথায় এবং কার সভাপতিত্বে চতুর্থ বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়?

উত্তর:- খ্রিস্টিয় প্রথম শতাব্দীতে কুষাণ রাজ কনিস্কর রাজত্বে কাশ্মীরে অনুষ্ঠিত হয়, বিসুমিত্রের সভাপতিত্বে।

প্রশ্ন:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম কী ?

উত্তর:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম ত্রিপিটক ( বিনয় পিটক, সুত্ত পিটক, অভিধর্ম পিটক )।

প্রশ্ন:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থ ত্রিপিটক কোন ভাষায় লেখা?

উত্তর:- বৌদ্ধদের প্রধান ধর্মগ্রন্থ ত্রিপিটক পালি ভাষায় লেখা।

প্রশ্ন:- জাতক কী ?

উত্তর:- বৌদ্ধ সাহিত্যের একটি বিশিষ্ট গ্রন্থ , এতে গৌতম বুদ্ধের পূর্ব জন্মের কাহিনী লিপিবদ্ধ রয়েছে।

প্রশ্ন:- অষ্টাঙ্গিক মার্গের অপর নাম কী ?

উত্তর:- অষ্টাঙ্গিক মার্গের অপর নাম মঝঝিম বা মধ্যপন্থা।

প্রশ্ন:- স্থূল ভদ্র কে ছিলেন ?

উত্তর:- তিনি পূর্বভারতে জৈনদের প্রধান নেতা। তিনি উদারপন্থী ছিলেন। তিনি ও তার অনুগামীরা শ্বেতাম্বর নামে পরিচিত।

প্রশ্ন:- হরপ্পা সভ্যতার সঙ্গে বৈদিক সভ্যতার প্রধান পার্থক্য কী?

উত্তর:- হরপ্পা সভ্যতা প্রধানত নগরকেন্দ্রিক ও বৈদিক সভ্যতা প্রধানত গ্রামকেন্দ্রিক।

প্রশ্ন:- জৈন ধর্মের প্রবর্তক কে ?

উত্তর:- পার্শনাথ।



প্রশ্ন:- প্রথম বৌদ্ধমহাসভা কোথায় আহুত হয় ?

উত্তর:- অজাতশত্রুর রাজত্বকালে রাজগৃহে প্রথম বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়।

প্রশ্ন:- জৈন ধর্মে ত্রিরত্ন/ জৈন আগম/ জৈন সিদ্ধান্ত কী?

উত্তর:- যথার্থ জ্ঞান, বিশ্বাস ও সদাচার এই তিনটি আদর্শ একেত্রে ত্রিরত্ন নামে পরিচিত।

পড়ুন: প্রাচীন ভারত ইতিহাসের প্রত্নতাত্বিক উপাদান গুলির গুরুত্ব।

প্রশ্ন:- দ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা কোথায় আহুত হয় ?

উত্তর:- কালাশোকের রাজত্বকালে বৈশালীতে দ্বিতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়।

প্রশ্ন: বেদ শব্দের অর্থ কী ?

উত্তর:- জ্ঞান।

প্রশ্ন:- তৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা কোথায় আহুত হয় ?

উত্তর:- অশোকের রাজত্বকালে পাটালিপুত্রে তৃতীয় বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়।

প্রশ্ন:- ত্রয়ী কি ?

উত্তর:- ঋক, সাম ও যজু: - এই তিনটি কে একসঙ্গে ত্রয়ী বলা হয়।

প্রশ্ন:- কার রাজত্বকালে প্রথম বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয় ?

উত্তর:- অজাতশত্রুর রাজত্বকালে প্রথম বৌদ্ধমহাসভা আহুত হয়।

প্রশ্ন:- উপনিষদ বা বেদান্ত কি ?

উত্তর:- বেদের শেষ ভাগ হল উপনিষদ। তাই উপনিষদকে বেদান্ত বলা হয়।

প্রশ্ন:- বৌদ্ধধর্মে জাগতিক কামনা-বাসনার অবসানের জন্য কোন পথের সন্ধান দেওয়া হয়েছে?

উত্তর:- বৌদ্ধধর্মে জাগতিক কামনা-বাসনার অবসানের জন্য অষ্টাঙ্গিক মার্গের কথা বলা হয়েছে।

প্রশ্ন:- দশরাজার যুদ্ধ কাদের মধ্যে হয়?

উত্তর:- বিশ্বামিত্র দশজন আর্য রাজার জোট গড়ে সুদাসকে আক্রমণ করে।

প্রশ্ন:- কৈবল্যের অর্থ কী ?

উত্তর:- কৈবল্যের অর্থ হল পরম বা বিশুদ্ধ জ্ঞান, যা লাভ করলে সুখ-দুঃখ ও পঞ্চরিপুকে জয় করা যায়।

প্রশ্ন:- ঋগবৈদিক যুগের অর্থনীতিক ভিত্তি কি ছিল ?

উত্তর:- কৃষি ও পশুপালন।

প্রশ্ন:- আর্যসত্য সম্বন্ধে কে বলেছিলেন ?

উত্তর:- বুদ্ধদেব আর্যসত্য সম্বন্ধে বলেছিলেন।

প্রশ্ন:- ঋগবৈদিক যুগের করের নাম কি ?

উত্তর:- বলি।

প্রশ্ন:- জৈন ধর্মের মূলনীতি কী ?

উত্তর:- জৈন ধর্মের মূলনীতি হল অহিংসা।

প্রশ্ন:- মহাভারত কে রচনা করেন?

উত্তর:- বেদব্যাস।

প্রশ্ন:- প্রথম জৈন গ্রন্থের নাম কী?

উত্তর:- প্রথম জৈন গ্রন্থের নাম কল্পসূত্র।

প্রশ্ন:- রামায়ণ কে রচনা করেন ?

উত্তর:- বাল্মীকি।



প্রশ্ন:- জৈনদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম কী ?

উত্তর:- জৈনদের প্রধান ধর্মগ্রন্থের নাম দ্বাদশ অঙ্গ।

প্রশ্ন:- আর্য কি ?

উত্তর:- আর্য হল ভাষা।

প্রশ্ন:- পঞ্চমহাবৃত বা পঞ্চোযাম কী ?

উত্তর:- অহিংসা, সত্যবাদিতা, অচোর্য ও ব্রহ্মচর্যা এই চারটি হল পঞ্চমহাবৃত।

প্রশ্ন:- কবে কোথায় গৌতম বুদ্ধের জন্ম হয় ?

উত্তর:- আনুমানিক খ্রিষ্টপূর্ব 566 অব্দ বৈশাখী পূর্ণিমা তিথিতে নেপালের তরাই অঞ্চলে কপিলাবস্ত গণ রাজ্যের সখ্যবংসে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রশ্ন:- তীর্থঙ্কর শব্দের অর্থ কী ?

উত্তর:- জৈনদের প্রধান ধর্মগুরুর নাম তীর্থঙ্কর।

প্রশ্ন:- কল্পসুত্র কে রচনা করেন ?

উত্তর:- ভদ্দ্রবাহু।

প্রশ্ন:- পার্শ্বনাথ কে ছিলেন ?

উত্তর:- পার্শ্বনাথ ছিলেন জৈনদের তেইশতম তীর্থঙ্কর।

প্রশ্ন:- ভদ্রবাহু কে ছিলেন ?

উত্তর:- তিনি ছিলেন জৈন সন্ন্যাসী। তিনি চন্দ্রগুপ্তের সমসাময়িক ছিলেন। তিনি দিগম্বর নামে পরিচিত ছিলেন।

প্রশ্ন:- জৈন ধর্মের সর্বপ্রথম তীর্থঙ্করের নাম কী ?

উত্তর:- সর্বপ্রথম তীর্থঙ্করের নাম ঋষভদেব বা আদিনাথ।

প্রশ্ন:- তীর্থঙ্কর কাদের বলা হয় ?

উত্তর:- যারা সাংসারিক দুঃখ কষ্ট পার হবার ঘাট নির্মাণ করে।

প্রশ্ন:- জৈন ধর্মের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কি ?

উত্তর:- দ্বাদশ অঙ্গ।

প্রশ্ন:- জৈনদের শেষ তীর্থঙ্করের নাম কী ?

উত্তর:- জৈনদের শেষ তীর্থঙ্করের নাম মহাবীর ( চব্বিশতম তীর্থঙ্কর )।

প্রশ্ন:- "ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ" কে কবে প্রতিষ্ঠা করেন?

উত্তর:- লর্ড ওয়েলেসলি ১৮০০ খ্রি: কলকাতায় ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন।

প্রশ্ন:- "ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ" কবে বন্ধ হয়ে যায়?

উত্তর:- ১৮০৬ খ্রি:।

প্রশ্ন:- জৈন সংগীতগুলি কবে, কোথায় ও কেনো আহুতি হয়?

উত্তর:- খ্রি: পূ: 300 অব্দ পাটালিপুত্রে প্রথম জৈন সংগীত আহুতি হয়। এখানে জৈন ধর্ম শাস্ত্রকে 14 টি পর্বের পরিবর্তে 12 টি অঙ্গ এ সংকলিত হয়। খ্রিস্টিয় পঞ্চম শতকে গুজরাটের বলভিতে ২য় জৈন সংগীত আহুতি হয়। এখানে দ্বাদশ অঙ্গের কিছু সংশোধন করে নতুন 12 টি অনুশাসন যোগ করা হয়।

প্রশ্ন:- জৈন ধর্মের উৎপত্তির সময়কাল থেকে মহাবীর পর্যন্ত কতজন তীর্থঙ্কর ছিলেন?

উত্তর:- জৈন ধর্মের উৎপত্তির সময় কাল থেকে মহাবীর পর্যন্ত সর্বমোট চব্বিশ জন তীর্থঙ্কর ছিলেন।

প্রশ্ন:- স্তূপ কি ?

উত্তর:- বৌদ্ধ ভিক্ষুকের দেহাবশেষের বা কোন পবিত্র ঘটনার সরণে নির্মিত অর্ধবিত্তকার গম্বুজকে স্তূপ বলে।

প্রশ্ন:- পার্শ্বনাথ প্রচারিত চতুর্যামের সাথে মহাবীর কোন নতুন আদর্শ যোগ করেন?

উত্তর:- পার্শ্বনাথ প্রচারিত চতুর্যামের সাথে মহাবীর অন্যতম আদর্শ হিসাবে সূচিতা বা ব্রহ্মচর্য আদর্শ যোগ করেন।

প্রশ্ন:- আজীবক মতবাদের প্রবক্তা কে?

উত্তর:- মক্ষালি গোসাল।

প্রশ্ন:- জৈনদের দুটি প্রধান সম্প্রদায়ের নাম কী?

উত্তর:- জৈনদের দুটি প্রধান সম্প্রদায়ের নাম শ্বেতাম্বর ও দিগম্বর।
Category: